গুগল এডসেন্স কি? এর আগে ও পরে কি কি কাজ করতে হবে?

গুগল এডসেন্স এর সম্পূর্ণ সমাধান

গুগল এডসেন্সঃ

পৃথিবীতে একথাই সত্য যে অনলাইন ও অফলাইন মার্কেটিং এক একটি চরম বাক্য বাস্তবে ব্যাবহৃত হয় আর তা হলো- স্থায়ী আয় যেটা নির্দিষ্ট একটা সময় কঠোর পরিশ্রম করার পর এর সুবিধা কাজ না করেও অনেকদিন পাওয়া যায়। আর গুগল এডসেন্স (Google Adsense) হলো তার বাস্তব প্রমাণ। চলুন এডসেন্স ১৪ গুষ্টি নিয়ে একটু ব্যাসিক ধারণা নিয়ে আসি…..

আসলে এডসেন্স এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যা বিভিন্ন মান সম্পন্ন ওয়েবসাইট এ বিজ্ঞাপন প্রচার করে থাকে এবং এর মালিকানাধীন কোম্পানি হচ্ছে গুগোল। ফ্রিল্যান্সিং করে এবং এডসেন্স এর নাম বা কাজ জানেন না এমন কেউ নেই তাহলে আপনি কেন জানবেন না। চলুন আপনাকেও গুগোল কে নিয়ে সম্পূর্ণ ধারণা দেই-

এককথায় গুগোল এডসেন্স হলো অনলাইনের বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দেখানোর মাধ্যমে যে আয় করা যায় তাকেই এডসেন্স বলা হয়। আর সেটা গুগোল এর মাধ্যম হয়ে আসে দেখেই আমরা একে গুগোল এডসেন্স বলে চিনি।

রেভিনিউ শেয়ার: গুগোল অন্য কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠান থেকে বিজ্ঞাপন এর অর্ডার সংগ্রহ করে এবং তার নিয়ন্ত্রণাধীন ওয়েবসাইট/ব্লগে পাবলিশ করে এবং লাভের প্রায় ৭০ শতাংশই এডসেন্স একাউন্টের মালিক কে দিয়ে দেয়। আর এটাই হচ্ছে রেভিনিউ শেয়ার।

বিষয় ভিত্তিক বিজ্ঞাপনঃ গুগোলের চোখে ফাকিঁ দেও আর সাইকেলে চড়ে আমেরিকায় যাওয়ার সমান কোনটাই সম্ভব না। গুগোল বিষয় ভিত্তিক পোষ্ট ও ভিজিটর’এর ইন্টারেস্ট এর ভিত্তিতে বিজ্ঞাপন দেখায়। এতে ভিজিটরের বিজ্ঞাপনে ক্লিক করার সম্ভাব্যতা বেড়ে যায় সেই সাথে এডসেন্স একাউন্ট মালিকদের বেশি লাভ হয়।

অন্য প্রোডাক্টস এর সাথে মিলঃ গুগোলের অন্যতম জনপ্রিয় সেবা হচ্ছে Gmail, Search Engine, YouTube, Blogspot ইত্যাদি, যেগুলো প্রায় সম্পূর্ণ ১০০% সফল। আর গুগোল ওয়েবমাস্টার টুল (Google Webmaster Tool)গুগোল এনালাইটিক্স (Google Analytics) যেগুলো এডসেন্স এর কমন ফিচার গুলোর সাথে অনেকাংশে একেঅপরের সাথে সংযুক্ত।

গুগল এডসেন্স পাওয়ার আগে / পূর্বে  যা যা করতে হবে?google adsense গুগল এডসেন্স কি গুগোল এ্যাডসেন্স

এ কথাই সত্য যে, গুগোল এডসেন্স পাওয়া কিছুটা কঠিন,  এর মূল কারণ হলো ভালো মানের ওয়েবসাইট/ব্লগ সাইট  ও কেন্টেন্ট ছাড়া গুগোল এখন আর গুগোল এডসেন্স একাউন্ট দেয় না, তবে একাউন্ট পাওয়া অসম্ভবও না। বেসিক কিছু শর্ত আছে এডসেন্স পাওয়ার জন্য, সেগুলো পূরণ করতে পারলেই এডসেন্স পাওয়া সম্ভব।

এবারে আমি শুধু এডসেন্স এর ব্যাসিক বিষয় গুলোর কথা জানাচ্ছি যা যা আপনাদের না জানলেই নয়, আপনারগুগল এডসেন্স পাওয়ার আগে ও পরে কি কি কাজ করতে হবে? তার পাশাপাশি একাউন্ট পরিচালনা, একাউন্টের ভেতরের কিছু খুঁটিনাটি সহ কিভাবে এর ব্যাবহারে টাকা উত্তোলনের রাস্তা গুলো সহ আলোচনায় নিয়ে আসি…

একটা ভালো মানের ব্লগ বা ওয়েবসাইটঃ এডসেন্স একাউন্ট পাওয়ার ১ম শর্তই হচ্ছে একটা ভাল মানের ওয়েবসাইট বা ব্লগ। তো, ‘ভাল মান’ বলতে কি বোঝায়? সুন্দর নাম? দেখতে সুন্দর? প্রচুর ভিজিটর? এসব কিছু? নাহ! ভাল মান বলতে বোঝায় ইউনিক কন্টেন্ট। আপনার ওয়েবসাইটের কন্টেন্ট অবশ্যই কপি/পেষ্ট যেনো না হয়। কন্টেন্ট হতে পারে ছবি, বিভিন্ন লেখা,  সফটওয়্যার, অডিও বা ভিডিও অথবা যে কোন কিছু হতে পারে।

একটা নিজস্ব ডোমেইনঃ ওয়েবসাইটের অবশ্যই একটি নিজস্ব ডোমেইন থাকতে হবে। আপনি চাইলে ফ্রি হোস্টিং এর ব্লগার ওয়েবসােইট বা ওয়ার্ডপ্রেস এর ফ্রি ব্লগ সাইট ব্যাবহার করতে পারেন, তবে কাষ্টম TLD (Top Level Domain) থাকতে হবে যেমনঃ .com .org .info .co ইত্যাদি। সাব ডোমেইন না হলেই ভাল হয়। প্রয়োজনে কিভাবে গুগল ব্লগস্পট  এ কাষ্টম ডোমেইন এড করতে হয় তা দেখে নিতে পারেন।

এফিলিয়েট ও পর্ণগ্রাফিঃ  আপনার সাইট এ কোন এফিলিয়েট লিঙ্ক ও পর্ণগ্রাফি এর লিংক থাকলে এক্টিভ এডসেন্সটিও নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

এছাড়া আরও যা যা থাকা যাবে নাঃ এলকোহল সম্বন্ধীয় সাইট বা ব্লগ, যে কোন ধরনের মাদক এমনকি সিগারেট কে প্রোমোট করা,  কোন জাতী, গোষ্ঠি বা ব্যাক্তিকে আক্রমণ করে লেখা হয় এমন ব্লগ। অগ্নেয়াস্ত্র বা যুদ্ধাস্ত্র সম্পর্কিত সাইট সহ এমন জাতীয় কোন কিছু রাখা যাবেনা।

ওয়েবসাইট এর বয়সঃ বর্তমানে সাইটের বয়স অন্ততপক্ষে নিম্নে ১ মাস হলেও হবে তবে ৬ মাস বা ১ বছর হলে ভালো হবে।

ওয়েবসাইট এর কন্টেন্টঃ ওয়েবসাইট এর কন্টেন্ট বা বিষয়ভিত্তিক লেখার সমষ্টি মোটামুটি ১০০০ শব্দ বা এর কাছাকাছি এছাড়া এর বেশি হলে আপনার এডসেন্স এর জন্যই ভালো।

google adsense গুগল এডসেন্স গুগোল এ্যাডসেন্স কি

এডসেন্স একাউন্টের জন্য আবেদনঃ

যদি আপনি উপরের সকল শর্ত পূরণ করে থাকেন, তাহলে এবার গুগল এডসেন্স একাউন্ট এর জন্য আবেদন করতে পারেন। তবে আবেদন করার সময় সে সকল বিষয় মনে রাখা অতিব জরুরী তা হলো-

সঠিক নাম ও ঠিকানাঃ এইতো কয়েক বছর আগেই এডসেন্স একাউন্ট এর ব্যাংক একাউন্ট যোগ করা যেত না,  চেক আসতো, ইসলামী ব্যাংক থেকে চেক টাকে ভাঙ্গাতে হতো +++ আরো অনেক ঝামেলা। ইসলামী ব্যাংক ছাড়া অন্য কোন ব্যাংক চেক নিত না। আর এখন ব্যাংক যোগ করা যায়, তাই আপনার একাউন্টের নামের সাথে যেন ব্যাংক একাউন্ট এর নাম হুবহু মিল থাকে নয়ত……… বাকি টা বুঝে নেন।

ইতোপূর্বেএডসেন্স  এপ্লাই করে থাকলেঃ  যদি ইতোপূর্বে এপ্লাই করে থাকেন, তবে নতুন করে আর একাউন্ট ব্যাবহার না করে, সেই একাউন্টটিই ব্যাবহার করাই ভাল।  দুই একাউন্ট এর তথ্য হুবহু মিলে গেলে এডসেন্স পাবেন না। বলবে, এই নামে আগের এপ্লাইন করা আছে ইত্যাদি ইত্যাদি পুরাতণ একাউন্ট টা দিয়ে যত আকাম কুকাম করে থাকেন না (খারাপ ভাববেন না, কিছু কিছু লোক করে থাকেন) কেন এতে  কোন সমস্যা নাই সেটা দিয়েই হবে।

এডসেন্স না পেলে কি করবেন?

এডসেন্স না পেলে আপনার জন্য ৩টি আপশন আছে, যথা-

১। এডসেন্স এর আশা একেবারেই ছেড়ে দেয়া।

২। ফিরতি ইমেইল যা দিবে তারা তা ভালভাবে পড়ে, ভুলগুলো সুদরে নেয়া, একই গুগোল একাউন্ট থেকে আবার এপ্লাই করা।

৩। তাও যদি না পান তাহলে আপনার জন্য গুগোলের হোস্টেড এডসেন্স একাউন্ট এ আবেদন করা ছাড়া আর কোন উপায় নাই।

আর এটা যেনে রাখা ভালো যে, গুগোলের হোস্টের এডসেন্স একাউন্ট মূলত গুগলের নিজস্ব হোস্ট সাইট যেমন- ইউটিউব ও ব্লগস্পটে ব্যাবহারের জন্য।

এডসেন্স পাওয়ার পর যা যা করতে হবেঃ

এডসেন্স যদি পেয়ে যান, তাহলে খুব তাড়াতাড়ি মাথা গরম করে কাজ করার দরকার নাই। শান্ত থাকুন আর-

কোয়ালিটি সাইটে এড বসানঃ যেই ধরনের সাইট থেকে আপনি এডসেন্স একাউন্ট পেয়েছেন, শুধু সেই ধরণের ভাল মানের সাইটে এড বসান। ভুলেও ক্রেক বা বা যেনোতেনো ধরনের সাইটে এড বসাবেন না, এতে একাউন্ট নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

নিজে বিজ্ঞাপনে ক্লিক করবেন নাঃ নিজে নিজে বা একই আইপি বা এরিয়া হতে ভুলেও এডসেন্স এর বিজ্ঞাপনে ক্লিক করবেন না। গুগোলের খুব গুরুত্বপূর্ণ শর্ত হচ্ছে, নিজের বিজ্ঞাপনে নিজে ক্লিক না করা। কোন প্রকার এড এ ক্লিক করানোর চিন্তা চাই সেটা বৈধ হক না কেন তবুও নিজে থেকে কোন প্রকার এড এ ক্লিক করা থেকে বিরত থাকুন।

কাউকে দিয়ে এড এ ক্লিক করাবেন নাঃ হতে পারে আপনার কোন সহচর, বেষ্ট ফ্রেন্ড, সে চায় আপনার একাউন্টে টাকা আসুক, কিন্তু এই চিন্তায় সে আপনার সাইটটিতে ঢুকে বিজ্ঞাপনে ইচ্ছামত ক্লিক করে দিবে? এটা করলে আপনার একাউন্ট বাতিল হয়ে যেতে পারে।

সবচেয়ে ভালো পন্থা হলো সাইট এ এসইও করে ভিজিটর নিয়ে আসেন এছাড়া  কাউকে কোন কিছু না বলাই ভাল।

এডসেন্স থেকে অর্থ উঠানো বা উত্তোলনঃ

প্রতি ১০০ ডলার হওয়ার পর পরেই আপনি টাকা তুলতে পারবেন। এছাড়া গুগোল আপনার প্রফাইলে যে ব্যাংক ইনফরমেশন দিয়েছেন সেই ব্যাংক একাউন্টে টাকা পাঠিয়ে দিবে। সেদিক থেকে গুগল এডসেন্স খুব সজাগ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *