ত্রাণ আত্মসাৎ কারীরা মানুষরুপী জানোয়ার, হানিফ। ত্রাণ আত্মসাতকারীদের কঠোর হুশিয়ারী, কাদের

ত্রাণ আত্মসাৎ কারী

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক: মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন:

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) এ দুর্যোগের সময়ে যারা অসহায় মানুষের ত্রাণ আত্মসাৎ কারী  হিসেবে পরিচিত হবে বা হয়েছে তারা মানুষরূপী জানোয়ার।

আমরা লক্ষ্য করছি, এ দুর্যোগের সময়ে ত্রাণ নিয়ে কিছু আত্মসাতের অভিযোগ উঠছে। আমি অবাক হয়ে যাই! কারা এসব মানুষ, যারা এ দুর্যোগের সময়ে অসহায় মানুষের ত্রাণ আত্মসাৎ করার চিন্তা করে! এদের মানুষ বলা যায় না! এরা মানুষরূপী জানোয়ার। এদের প্রতি আমি তীব্র ঘৃণা প্রকাশ করি, ও নিন্দা জানাই।

নিজ বাসা থেকে শনিবার এক ভিডিও বার্তায় হানিফ এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, আমি জেলা প্রশাসকদের অনুরোধ করব আপনাদের অধীনস্থ সব উপজেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দিন- এ ত্রাণ যেন কেউ আত্মসাৎ করতে না পারে। সে জন্য কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।

কোনো ব্যক্তি বা জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে ত্রাণ আত্মসাতের অভিযোগ উঠলে তাৎক্ষণিক কঠোর আইনি ব্যবস্থা নিন। এ অসহায় মানুষের জন্য বরাদ্দ ত্রাণ নিয়ে কোনো কারচুপি-জালিয়াতি আমরা বরদাশত করব না। আমরা কঠোরভাবে এটা দমন করতে চাই।

হানিফ বলেন, বারবার সতর্ক করে দেয়ার পরও আমাদের কিছু মানুষের ভুলে সমগ্র দেশে আস্তে আস্তে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ চিকিৎসক ও বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী দেশের জনগণকে ঘরে থাকার জন্য বারবার অনুরোধ করা হয়েছিল।

কিন্তু কিছুসংখ্যক মানুষের সচেতনতাহীন হওয়ার কারণেই এ লকডাউন পুরোপুরি কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। ফলে করোনাভাইরাস ধীরে ধীরে ছড়িয়ে যাচ্ছে। মানুষকে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আমি আবারও সবার প্রতি অনুরোধ করব, সবাই ঘরে থাকুন। নিজে বাঁচুন অন্যকেও বাঁচতে দিন।

করোনা দুর্যোগে দেশবাসীর জন্য যারা নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন তাদের ধন্যবাদ জানিয়ে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, এ দুর্যোগকালীন যেসব ব্যক্তি বা সংগঠন বিশেষ করে ফ্রন্টলাইনের সোলজার হিসেবে যারা কাজ করছেন- চিকিৎসক, নার্স, ওয়ার্ডবয় প্যাথলজিস্টসহ আমাদের সেনাবাহিনী, পুলিশ বাহিনী, তারা চরম ঝুঁকি নিয়ে এ দুর্যোগ মোকাবেলা করে যাচ্ছেন। তাদের সবার প্রতি দেশবাসীর পক্ষ থেকে গভীর কৃতজ্ঞতা জানাই।

এদিকে ত্রাণ বিতরণ ও পদ্মা সেতু নিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের যা বললেন

ত্রান বিতরণে অনিয়ম
সত্য উদঘাটনে আপডেট ইনফরমেশন

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যে ত্রাণ বিতরণ নিয়ে অনিয়মকারীদের (ত্রাণ আত্মসাৎ কারী) বিরুদ্ধে কঠোর হুশিয়ারী উচ্চারণ করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেছেন, ‘‘ত্রাণ বিতরণের নামে কোনো রকম অনিয়ম  (ত্রাণ আত্মসাৎ কারী) সহ্য করা যাবে না, খেটে খাওয়া মানুষের ত্রাণ নিয়ে যারা ছিনিমিনি খেলবে, সে যেই হোক কঠোর হাতে দমন করতে হবে। শনিবার তার সরকারি বাসভবনে এক অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘সরকারি ত্রাণ যথাযথভাবে বিতরণ করতে হবে। স্বল্প আয়ের মানুষদের কাছে পৌঁছাতে হবে। কেউ ত্রাণ আত্মসাৎ করলে বা এতে অনিয়ম করলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’’

করোনা নামের অদৃশ্য ভাইরাসকে পরাজিত করতে সব মতপার্থক্য ভুলে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, পেশাজীবী ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে ধৈর্য এবং সাহসিকতার সঙ্গে ঐক্যবদ্ধভাবে সবাইকে পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে।

সবাইকে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘যারা ঘরে অবস্থান এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে পারবেন না তারা নিজেরাই নিজেদের বিপদ ডেকে আনছেন। করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা খুব জরুরি।’ পাশাপাশি সবাইকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি এবং করোনা প্রতিরোধে দেওয়া নির্দেশনাবলি অক্ষরে অক্ষরে মেনে চলার অনুরোধ করেন তিনি।

করোনাভাইরাসকে কেন্দ্র করে একটি কুচক্রী মহল গুজব ছড়াচ্ছে অভিযোগ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তাদের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। ’সমাজের বিত্তবান ও দলের নেতাকর্মীদের অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, এই চলমান প্রয়াস আরও জোরদার করতে হবে।

পদ্মাসেতু:

প্রসংগক্রমে তিনি আরো জানান যে,  সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘এই সংকটের সময়েও সুখবর হচ্ছে দেশের বৃহত্তর প্রকল্প পদ্মা সেতুর ২৮তম স্প্যান আজ বসানো হয়েছে, ফলে ৬ দশমিক এক পাঁচ কিলোমিটার দীর্ঘ এই সেতু এখন ৪ দশমিক দুই কিলোমিটার দৃশ্যমান হলো।’ অবশেষে সবাইকে সচেতনতা অবলম্বন করতে বলেছেন ও সর্ব শেষ বাসায় থাকার আহব্বান করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *