ফ্রিল্যান্সিং প্রস্তুতির জন্য প্রয়োজনীয় কিছু সফট্ওয়্যার

ফ্রিল্যান্সিং প্রস্তুতি এর জন্য যে সফটওয়্যারগুলো লাগবেই

কম্পিউটারের জন্য ১০ টি প্রয়োজনীয় সফটওয়্যারঃ

আমি যেসকল সফটওয়্যারের বেপারে নিচে কথা বলবো সেগুলো আপনারা ফ্রীতেই গুগল থেকে সার্চ করে খুব সহজেই ডাউনলোড করে নিতে পারেন। আর অবশ্যই যারা প্রস্তুতি নিচ্ছেন যে ফ্রিল্যান্সিং করবেন তাদেরকে বলব আপনারা ধর্য ধরে আপনার প্রচেষ্ট চালিয়ে যান, আপনি সফল হবেন এটাই নিশ্চিত।

১. Avast antivirus বা এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার:

যদি আপনারা কম্পিউটার/ ল্যাপটপে ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকেন, বা অন্যদের থেকে বিভিন্ন ধরনের ফাইল, ভিডিও বা যেকোনো জিনিস নিজের কম্পিউটারে নিয়ে আসা বা দেওয়া/নেওয়া করেন, তাহলে একটি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার আপনার কম্পিউটার/ ল্যাপটপের জন্য খুবি জরুরি। কারণ, এন্টিভাইরাস ছাড়া আপনার কম্পিউটারে/ ল্যাপটপে যেকোনো সময় যেকোনো মাধ্যমে ভাইরাস (virus) ঢুকতে যেতেই পারে। বিশেষ করে যদি আপনি ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকেন,  তাহলে সেটা আপনার এবং আপনার কম্পিউটার/ ল্যাপটপ এর জন্য অনেকটা ক্ষতিকারক হতে পারে।

এছাড়া – কম্পিউটার ভাইরাস কি?কম্পিউটারকে ভাইরাসমুক্ত রাখার কৌশল এখান থেকে আরো ভালোভাবে জানতে পারেন।

আপনার নিজের কম্পিউটার/ ল্যাপটপের একটি ফ্রি হলেও antivirus software ব্যবহার করুন, এবং, যখনি কথা আসে, ফ্রি একটি computer antivirus software- তখন Avast আমার নজরে সবথেকে কার্যকর ভালো এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার। এর কারণ হলো ফ্রি হলেও, এই এন্টিভাইরাস আপনার কম্পিউটার/ল্যাপটপ এর সব দিক দিয়ে ভাইরাস মুক্ত রাখতে সাহায্য করবে, Avast free antivirus এর কিছু features হলো “Block viruses & other malware, Detect viruses, ransomware, threats in real-time. ইত্যাদি ইত্যাদি…..। তাহলে দেরি করবেননা, এখনই এই ফ্রি আভাস্ট (avast) ফ্রি এন্টিভাইরাস ডাউনলোড করে নিন।

এছাড়া আরো কিছু এন্ট্রিভাইরাস সফটওয়্যার আছে। যেমন-

Avira, Bitdefender, Baidu, Comodo, FortiClient ইত্যাদি ইত্যাদি…..।

২. IDM ইন্টারনেট ডাউনলোড ম্যানেজার:

IDM বা “Internet download manager” একটি কম্পিউটার/ ল্যাপটপে থাকা অনেক প্রয়োজন, যদি আপনারা আপনাদের পিসি বা ল্যাপটপ- এ ইন্টারনেট থেকে movies/ games/ music বা যেকোনো ফাইল ডাউনলোড করতে চান তাহলে  ইন্টারনেট ডাউনলোড ম্যানেজার (Idm)  সফটওয়্যার থেকে যেকোন ফাইল ডাইনলোড ও ডাউনলোডিং স্পিড (download speed) বাড়িয়ে আপনার যেকোনো ফাইল ইন্টারনেট থেকে খুব তাড়াতাড়ি ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

IDM বা Internet download manager আপনারা ৩০ দিনের জন্য ফ্রীতেই ব্যবহার করতে পারবেন এর পর কিনে নিতে হবে। তবে, গুগলে আপনারা সার্চ করলেই পাবেন, কিভাবে IDM বা Internet download manager আজীবন ফ্রীতেই ব্যবহার করতে পারবেন। 

৩. Apowersoft Free Screen Software– স্ক্রিন রেকর্ডার:

ইউটিউবার হওয়ার কথা ভাবছেন?  বা ইউটিউবের চ্যানেল বানানোর কথা ভাবছেন? তাহলে মনে রাখবেন আপনার একটি স্ক্রিন রেকর্ডার সফটওয়্যার এর প্রয়োজন হবেই। পিসির একটি স্ক্রিন রেকর্ডার সফটওয়্যার এর মাধ্যমে আপনার কম্পিউটার /ল্যাপটপের স্ক্রিনের ভিডিও রেকর্ড করে অনেক ধরনের টিউটোরিয়াল ভিডিও বানাতে পারবেন এবং তারপর সেই ভিডিও গুলি ইউটিউবে আপলোড বা ছেড়ে দিতে পারেন। 

সেক্ষেত্রে আপনি Apowersoft সফটওয়্যারটি ব্যবহার করতে পারেন, তাও আবার সম্পুর্ণ ফ্রিতে।

এছড়া আরো অনেক ফ্রি স্ক্রিন রেকর্ডার সফটওয়্যার পাবেন যেমন-

iSpring Free cam, wondershare Filmora, Camtasiaইত্যাদি ইত্যাদি….।

৪. Share x: স্ক্রিন শর্ট বা স্ক্রিন ক্যাপচার সফটওয়্যার

Share x হলো এমন একটি মজার সফটওয়্যার যার দ্বারা আপনারা উইন্ডোজ কম্পিউটার কিংবা ল্যাপটপে কেবল স্ক্রিনশটই নিতে পারবেন না বরং তার সাথে স্ক্রিন শট গুলিকে এডিট ও করতে পারবেন।

আপনি কি ব্লগার হওয়ার কথা ভাবছেন? তাহলে বিভিন্ন টিউটোরিয়াল আর্টিকেলের জন্য এই screen capture সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন (এটা আমিও ব্যবহার করি) এবং তার সাথে সেই স্ক্রিনশট গুলি একসাথেই সেখানে এডিট করে সবটাই করেনিতে পারবেন। 

৫. CCcleaner – System cleaner and booster

আমাদের কম্পিউটার নতুন অবস্থায় যেমন খুব দ্রুত থাকে, তেমন কিন্তু ফাস্ট বা দ্রুত কিছু দিন পর আর থাকেনা। এর কারণ! আপনি কম্পিউটার/ ল্যাপটপ যত ব্যবহার করবেন ততই তার মধ্যে ক্যাশে (cache) ফাইল/ কুকিজ (cookies)/ temporary files ইত্যাদি ইত্যাদি ধরণের ফাইল জমা হতে থাকে যেগুলি আমাদের কোনো কাজেই আসেনা এবং  এগুলির কারনেই মূলত আমাদের কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেম স্লো হয়ে যায়।

আর যদি আপনি এমন অপ্রয়োজনীয় ফাইল কম্পিউটার/ল্যাপটপ থেকে ডিলিট করে নিজের কম্পিউটার বা ল্যাপটপকে ফাস্ট এবং দ্রুত করে নিতে চান তাহলে CCcleaner softwareটি আপনার অনেক কাজে আসবে। 

CCcleaner আপনার কম্পিউটারে পূর্বের জমা হওয়া সব ধরণের অপ্রয়োজনীয় file, cache, cookies file ইত্যাদি ডিলেট করে এবং আপনার কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেমকে অনেক ফাস্ট/ দ্রুত কাজ করার উপযোগী করে তোলে। 

৬. AnyDesk: Remote desktop sharing Software

হয়তো এই সফটওয়্যারটি সবসময় অনেকেরি কাজে নাও আসতে পারে। কিন্তু, অনেক ফ্রিল্যান্সার রাই এই সফট্ওয়্যার ব্যবহার করে থাকে যদিও তারা বর্তমানে আরো অনেকে অনেক ভালো ভালো সফট্ওয়্যার ব্যবহার করে থাকে, কিন্তু শুরুটা এখান থেকেই হয়েছিলো তাদের। AnyDesk সফটওয়্যার, নিজের computer/ laptop এ ইনস্টল বা ব্যবহার করে, আপনারা যেকোনো কম্পিউটার থেকে অন্য যেকোনো কম্পিউটার (remotely) নিয়ন্ত্রণ (control) বা প্রবেশ (access) করতে পারবেন।

তবে শর্ত  হলো- দুটো কম্পিউটার/ ল্যাপটপেই AnyDesk সফটওয়্যার ইনস্টল করা থাকতে হবে এবং দুটো কম্পিউটার ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত (connected) থাকতে হবে। ব্যস হয়ে গেলো। 

৭. Microsoft Office Programe: 

ফ্রিল্যান্সিং যারা করে তারা Microsoft Office Programe ব্যবহার করেননি এমন কেউ নেই। যদি আপনি ডাটা এন্ট্রি কাজ করতে চান বা ফ্রিল্যান্সিং ছাড়াও এর প্রভাব দেখেন তাহলে বলে শেষ করা যাবে না। এমন কোন অফিস নেই যে ডাটা এন্ট্রি করতে হয় না। আর ডাটা এন্ট্রি করতে হলে Microsoft Office Programe এর বিকল্প তাকলেও এর মতো বহুল পরিচিতি বা ব্যবহার আজ পর্যন্ত কোন সফট্ওয়্যারি পারেনি হয়তো পারবেও না। 

সুতরাং যদি এই সফটওয়্যারটি ইনস্টল না দিয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই খুব তাড়াতাড়ি  গুগল থেকে ডাউনলোড করে নিন। 

৮.  Winrar/winzip: File extractor& compressor

যদি আপনারা কম্পিউটার অথবা ল্যাপটপে ইন্টারনেট থেকে যেকোন software বা games ডাউনলোড কোরে ব্যবহার করার কথা ভাবছেন, তাহলে অবশ্যই মনে রাখবেন winrar /winzip software আপনার কম্পিউটারের জন্য প্রয়োজন হবেই।

কারণ, বেশিরভাগ ফ্রি কম্পিউটার গেমস,  সফটওয়্যার এবং ফাইল যখন আমরা ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করে থাকি তখন সেগুলো কম্প্রেসড (compressed), রার (RAR) বা zipped ফরম্যাটে থাকে, এবং, সেই compressed বা zipped file ওপেন (open) করার জন্য বা Unzip করার জন্য আমাদের যেটা করতে হয় সেটা হলো winrar/winzip software এর ব্যবহার করতে হয়।

১০০% শিওর ভাবে বলতে পারবো যে, যদি আপনার কম্পিউটারে উইনরার (winrar) বা winzip নেই, তাহলে আপনি বেশিরভাগ সফটওয়্যার বা গেমস নিজের কম্পিউটার বা ল্যাপটপে ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করতে পারলেও সেগুলি ইনস্টল করতে পারবেন না।

যা জানা প্রয়োজন– সম্পূর্ণ নতুন ফ্র্যল্যান্সারদের জন্য বাংলায়ইংরেজীতে

৯. Google Chrome – ইন্টারনেট ব্রাউজার

নিজস্ব কম্পিউটার/ ল্যাপটপ থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করার মজাটাই আলাদা। ইউটিউবে গিয়ে ভিডিও দেখা, ভিডিও ডাউনলোড, সোশ্যাল মিডিয়াতে চ্যাটিং, মুভি দেখা বা পার্সোনাল কাজ করা যে কাজই হক না কেন? এইগুলো সব আমরা নিজের কম্পিউটার/ ল্যাপটপে ইন্টারনেটের মাধ্যমে করতে পারবওওওওওওওওওওওওওও না… যতক্ষণ না একটা ব্রাউজার ইনস্টল দিব বা ব্যবহার করব।

সুতরাং বুঝতেই পারছেন এই ব্রাউজার যদি হয় Google এর প্রডাক্ট তাহলে তো কোন কোথাই নেই… আর সেটা হলো Google chrome, যত ধরণের ওয়েব ব্রাউজার অনলাইনে আছে তাদের মধ্যে Google chrome সব থেকে সেরা, ফাস্ট, অ্যাডভান্সড (advanced) এবং নিরাপদ হিসেবে আমাদের কাছে ইতোমধ্যেই প্রমাণিত হয়েছে। এর মাঝে আছে  extensions বা plugins যা ব্যবহার করে আপনার মনমত আরো মজাদার (interesting) করে নিতে পারবেন।

১০. Adobe: (Photoshop (PS)/ Adobe Illustrator (AI)

ফ্রিল্যান্সিং করবেন অথচ এডোবি ফটোসোপ/ ইলাস্ট্রাটর সম্পর্কে  জানবেন সেটা কি হয়? সুতরাং বিভিন্ন ব্লগ, থামনেইল, ছবি, এনিমেশন, সহ অনেক অনেক কাজ করা যায়।

এর একবার যদি  এই দুইটি সফট্ওয়্যার সম্পর্কে আয়ত্ত্বে নিয়ে আসতে পারেন তো আপনি হয়ে যাবেন গ্রাফিক্স ডিজাইনার, আর হয়তো বাকিটুকু আপনাদের বুঝাতে হবেনা! কারন এই দুইটি সফট্ওয়্যার সম্পর্কে  100 পোষ্ট করেও এর কাজগুলো সম্পর্কে  লিখে বুঝানো সম্ভব না।

আমাদের কথাঃ

উপরের সকল সফট্ওয়্যার গুলোর লিংক আমি ইচ্ছে করেই দেইনি কারণ যদি আপনি অনলাইনে খুঁজে খূঁজে না পেতে পারেন তাহলে ফ্রিল্যান্সিং করবেন/শিখবেন কিভাবে?

আপনাদের অনলাইন বা কম্পিউটার এর যে কোন সমস্যার জন্য আমাদেরকে জানাতে পারেন। আমরা চেষ্টা করব আপনার সমস্যার যথাযথ মূল্যায়ন দিতে। 

ভালো থাকবেন আর অবশ্যই আমাদের সাথে থেকে আর্টিকেল ভালো লেগে থাকলে, শেয়ার অবশই করবেন। (আল্লাহ হাফেজ)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *